সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত,এটি পড়ার নিয়ম এবং আরবি ও বাংলা উচ্চারণগুলো জেনে নিন

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত এবং এর আমল নিয়ে অনেকেই বিভিন্ন ধরণের প্রশ্ন করে থাকেন। এর কারণ হলো পবিত্ত কোরআন মাজিদের ১১৪টি সূরার মধ্যে এটি অনেক গুরুত্তপূর্ন। এটি পাঠ করলে অনেক সাওয়াব হয়। আজকে আমরা এটি পড়ার ফজিলত এবং এটি পড়ার নিয়ম ও এর সম্পর্কে হাদিস নিয়ে আলোচনা করবো। তাই পূরো কন্টেন্টটি পড়ার অনুরোধ রইলো। 

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত

এটি কোরআনের ৫৯তম সূরা এবং এটির আয়াত সংখা হলো ২৪। কোরআন মাজিদের মাঝে সব সূরাই অনেক ফজিলতপূর্ণ। এইগুলার মধ্যে মানুষের কল্যাণ নিহিত রয়েছে। তবে কিছু কিছু সূরার আয়াত মহান আল্লাহ তায়ালার মহিমা এবং প্রশংসা নিয়ে বর্ণিত হয়েছে। তার মধ্যে এই সূরার শেষের তিন আয়াত অনেক গুরুত্তপূর্ণ। এই আয়াত গুলোর মধ্যে মহান আল্লাহর সুন্দরতম নামসমূহ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। মহান আল্লাহ কে তার সুন্দরতম নাম ধরে ডাকলে তিনি অনেক খুশি হন। সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলতগুলো নিচে বর্নণা করা হলোঃ 

  1. কেউ যদি সকালে এই তিন আয়াত পড়ে তাহলে তার জন্য ৭০ হাজার ফেরেস্তা মাগফিরাতের জন্য দোয়া করে।
  2. সন্ধার সময় এটি পড়ে তাহলে তার জন্যও ফেরেস্তাগণ দোয়া করতে থাকে। 

উপরোক্ত ফজিলতগুলো সহিহ কি না তা নিয়ে সন্দিহান রয়েছে। তবে তার মানে এটা নয় যে আপনি এটা পড়লে গুনাহ হবে। যদি এটি পাঠ করেন তাহলে এটি আপনার জন্য অনেক ভালো। 

আরোও পড়ুনঃ সূরা ফাতিহা ব্যাখা

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত

ফজরের পরে সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত পড়ার ফজিলত

ফজরের পরে এই আয়াত পড়ার ফজিলত নিয়ে তেমন একটা সহিহ হাদিস নেই। তবে এই আয়াত এর অর্থগুলো অনেক সুন্দর এবং সাবলীল। মহান আল্লাহর প্রশংসা এখানে বর্ণনা করা হয়েছে। এটির উচ্চারণও অনেক সহজ। তাই এটি ফজরের পরে পড়লে আপনার অনেক সাওয়াব হবে এবং আপনার দিনটি অনেক ভালো ভাবে অতিবাহিত হবে ইনসাল্লাহ। 

 ফরজ নামাজের পর সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত পড়ার ফজিলত

আমাদের উপর নামাজ ফরজ করা হয়েছে। ফরজ নামাজের পর আমাদের যেকোনো আমল মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে অনেক প্রিয়। তিনি নামাজিদের ভালোবাসেন এবং তাদেরকে জান্নাত দিবেন। সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত আপনি চাইলে ফরজ নামাজের পর পরতে পারবেন। এটি পড়ে মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করলে তিনি আমাদেরকে ইনসাল্লাহ ক্ষমা করে দিবেন। কারণ এটির মাঝে তার অনেক সুন্দরতম নাম রয়েছে। 

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত সম্পর্কে হাদিসগুলো কি সহিহ নাকি জাল

এটি নিয়ে অনেক মতবাদ রয়েছে যে এটি জাল নাকি সহিহ। আমাদের দেশের অনেক আলেম এটির ফজিলত নিয়ে বর্নীত হাদিস গুলোকে দূর্বল বলেছেন। অনেকে বলেন এটে পড়লে ফজিলত আছে আবার অনেকে বলেন এটির কোনো ফজিলত নেই। তবে এটি পড়লে যে সমস্যা হবে তা কিন্তু না। এটিকে একবারেই বাদ দেওয়া যাবেনা। আপনি চাইলে পড়তে পারেন আপনার সহিহ নিয়ত এর মাধ্যমে। 

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত পড়ার নিয়ম

এটি পড়ার তেমন কোনো নির্দিস্ট নিয়ম নেই। আপনি যেভাবে কোরআন তেলাওয়াত করেন সেভাবেই এটি পড়তে পারেন। আমরা সাধারনত কোরআন পাঠের জন্য নিজেকে পবিত্ত্র করে এবং কোনো পবিত্ত্র স্থান বাচাই করি। তবে এটি পড়ার জন্য আপনি পবিত্ত্র থাকলেই হবে। আপনাকে এটি পড়ার জন্য কোনো নির্দিস্ট যায়গায় বস্তে হবেনা। যেকোনো অবস্থাতেই সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত পড়তে পারবেন শুধুমাত্ত্র কোরআন পাঠের নিষিদ্ধ স্থান ছাড়া। 

এটির আরবি এবং বাংলা উচ্চারণ

এই তিন আয়াতের আরবি এবং বাংলা বাংলা উচ্চারণগুলো নিচে দেওয়া হলোঃ

আরবি উচ্চারণঃ 

هُوَ اللَّهُ الَّذِي لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ عَالِمُ الْغَيْبِ وَالشَّهَادَةِ ۖ هُوَ الرَّحْمَٰنُ الرَّحِيمُ اللَّهُ لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ عَالِمُ الْغَيْبِ وَالشَّهَادَةِ ۖ هُوَ الرَّحْمَٰنُ الرَّحِيمُ هُوَ اللَّهُ الَّذِي لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ الْمَلِكُ الْقُدُّوسُ السَّلَامُ الْمُؤْمِنُ الْمُهَيْمِنُ الْعَزِيزُ الْجَبَّارُ الْمُتَكَبِّرُ ۚ سُبْحَانَ اللَّهِ عَمَّا يُشْرِكُونَ

বাংলা উচ্চারণঃ 

হুওয়াল্লাহুল্লাযি  লা ইলাহা ইল্লা হুয়া। আলিমুল গায়বি ওয়াশ শাহাদাতি। হুয়ার রাহমানুর রাহীম। হুয়ার রাহমানুর রাহীম। হুয়া অল্লাহু লা ইলাহা ইল্লা হুয়া। আল মালিকুল কুদ্দুসুস সালামুল মুমিনুল মুহাইমিনুল আজীজুল জব্বারুল মুতাকাব্বিরু। সুবহানাল্লাহি আম্মা ইয়ুরিখুন। হুওাল্লাহুল খালিকুল বারিউল মুছাব্বিরু লাহুল আসমাউল হুসনা। ইয়ুছাব্বিরু লাহুল মা-ফিস সামাওাতি ওয়াল আর্ধ। ওয়াহুয়াল আযিযুল হাকিম। 

উপসংহার

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। এটির ফজিলত নিয়ে অনেক দ্ধিমত থাকলেও এটি পড়ার বিধান রয়েছে। মহান আল্লাহ তাদের কে ভালোবাসেন যারা কোরআন পাঠ করেন। কোরআনের মধ্যে এই তিন আয়াত বিশেষ ভাবে মহান আল্লাহ তায়ালার গুনবাচক নাম প্রকাশ করা হয়েছে। তাই আপনি এটি পড়ার চেস্টা করবেন। ধন্যবাদ সবাইকে। 

2 Comments on “সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াতের ফজিলত,এটি পড়ার নিয়ম এবং আরবি ও বাংলা উচ্চারণগুলো জেনে নিন”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *